পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার পানপট্টি লঞ্চঘাট এলাকায় সোমবার সন্ধ্যায় আগুনমুখা নদীতে দুই স্পিডবোটের সংঘর্ষে তিনজন আহত ও একজন নিখোঁজের খবর পাওয়া গেছে। গলাচিপা থানার পুলিশ ঘটনা স্থলে পানপট্টি লঞ্চঘাট পরিদর্শন করেছে। আহত গলাচিপা পৌর এলাকার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মো. সেকান্দার (৫৫), মো. সাহাবুদ্দিন সিকদার (৪০) ও স্পিডবোট ড্রাইভার মাহবুব।

এর মধ্যে সেকান্দার গলাচিপা স্বাস্থ কমপ্লেক্স চিকিৎসাধীন রয়েছে এবং সাহাবুদ্দিন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। গুরুতর আহত স্পিডবোট ড্রাইভার মাহবুবকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়েছে। তবে নিখোঁজের খবরটি সঠিক নয় বলে জানিয়েছেন গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আখতার মোর্শেদ।

গলাচিপা পানপট্টি লঞ্চঘাটের স্পিডবোট এর পরিচালক মো. মোমেন বরিশালটাইমসকে জানান, ‘সোমবার সন্ধ্যায় পানপট্টি লঞ্চঘাট এলাকায় রাঙ্গাবালীর কোড়ালিয়া লঞ্চঘাট থেকে যাত্রী নিয়ে গলাচিপার পানপট্টি লঞ্চঘাট আসছিল। কিন্তু পানপট্টি লঞ্চঘাটের কাছাকাছি আসলে যাত্রীবাহী স্পিডবোটের সঙ্গে পায়রা বন্দরের অপর আরেকটি স্পিডবোটের সংঘর্ষ হয়। এতে যাত্রীবাহী স্পিডবোটটি উল্টে যায়। এসময় বোটে থাকা পাঁজনের মধ্যে চার জন পাওয়া গেলেও অজ্ঞাত এক যাত্রী নিখোঁজ রয়েছে তিনি আরো বলেন, ‘কোড়ালিয়া লঞ্চঘাট থেকে তিনজন যাত্রী টিকেট কাটে। কিন্তু ড্রাইভার মাহাবুব গুরুতর অসুস্থ’। সে জানিয়েছে একজন ফ্রি যাত্রী ছিল। কিন্তু ফ্রি যাত্রীর নাম ঠিকানা বা কোন ধরণের সন্ধান এখনো আমরা পাইনি। আমরা সন্ধানের জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। ড্রাইভার মাহবুব মারাত্মক অসুস্থ হওয়ায় তাকে বরিশাল চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে ।’

দুর্ঘটনায় আহত সেকান্দার বলেন, ‘আমরা কোড়ালিয়া লঞ্চঘাট থেকে তিনজন যাত্রী উঠি। আর স্পিডবোট ড্রাইভারসহ অপর আরেকজন মোট পাঁচজন বোটে ছিলাম। দুর্ঘটনার পর ড্রাইভারের সাথে থাকা অপরিচিত ব্যক্তিকে আমরা আর খুঁজে পাইনি।’
এ ঘটনায় কোস্টগার্ড মঙ্গলবার সকাল থেকে ঘটনাস্থলের ওই আগুনমুখা নদীতে দুটি ট্রলার নিয়ে লম্বা বাঁশ দিয়ে নিখোঁজ ব্যক্তির সন্ধানে তল্লাশি চালায়।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মঙ্গলবার বিকাল ৩টা পর্যন্ত নিখোঁজ ব্যক্তির কোন সন্ধান মেলেনি।
এ প্রসঙ্গে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আখতার মোর্শেদ বলেন, ‘আমরা সরেজমিনে পানপট্টি লঞ্চঘাট গিয়েছি। নিখোঁজ ব্যক্তি সম্পর্কে সঠিক তথ্য কেউ দিতে পারেনি। তবে আমরা সব ধরণের খোঁজ খবর নেওয়ার চেষ্টা করছি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here