মরণঘাতী করোনাভাইরাস থেকে রক্ষায় সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে জনসমাগম রোধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে প্রশাসন। হাঁট-বাজার শুরু করে পাড়া-মহল্লা পর্যন্ত এখন আইনশৃঙ্খলা জোরদার করা হয়েছে, হচ্ছে। প্রশাসনের এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে র‌্যাব-পুলিশ ও সেনাবাহিনী সমন্বয়ে গঠিত বেশ কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত মাঠে রয়েছে। জেলা প্রশাসনের এই ভ্রাম্যমাণ আদালত শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত বিভিন্ন অপরাধে ৬২ জনকে জরিমানা দিয়েছেন। এই তথ্য বরিশাল জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান বরিশালটাইমসের এ প্রতিবেদককে মুঠোফোনে নিশ্চিত করেছেন।প্রশাসনের সূত্র জানায়- গত দুদিনে বরিশাল নগরীসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মোট ৬২ জনকে আটক করে। সেই সাথে যাত্রী পরিবহনের অপরাধে আটক করে দুটি মাইক্রোবাস ও দুটি পিকআপ। তাদের শুক্রবার (০৩ এপ্রিল) আটক ৪১ জনকে আটক পরবর্তী ৪৩ হাজার ৯শ’ টাকা জরিমানা আদায় করে তাদের মুক্তি দেন। এর আগে বৃহস্পতিবার ২১ জনকে সামাজিক দুরত্ব বজায় না রাখার অপরাধে আটক করে। পরে তাদেরকেও জরিমানা শর্তে মুক্তি দেওয়া হয় বলে জানা গেছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে- শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সেনাবাহিনী ও পুলিশের সদস্যদের সহযোগিতায় বরিশাল শহরের সদররোড, নথুল্লাবাদ, কাশিপুর, নবগ্রাম রোড চৌমাথা, রুপাতলী ও সাগরদী এলাকায় অভিযান চালান জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান এবং মো. সাইফুল ইসলাম। এসময় সরকারি নির্দেশ অমান্য করে অপ্রয়োজনীয় দোকান খোলা রাখার অপরাধে সাগরদী এলাকার দুই হার্ডওয়্যার দোকানের মালিক ও এক কর্মচারীকে ১২ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জিয়াউর রহমান।

অন্যদিকে নগরের নবগ্রাম রোড চৌমাথা এলাকায় পিকআপ ভ্যানে গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহনের অভিযোগে দুই চালকসহ মোট ২৩ আরোহীকে ১৬ হাজার ৯শ’ টাকা জরিমানা করা হয়। এবং পিকআপ দু’টি আটক করা হয়। মালবাহী পিকআপ ভ্যান দু’টিতে চালকরা লেবুখালি থেকে ঢাকার পোস্তাগোলার উদ্দেশে যাত্রী নিয়ে যাচ্ছিল।

এছাড়া দু’টি মাইক্রোবাসে গাদাগাদি করে ঢাকার উদ্দেশে যাওয়ার সময় রুপাতলী এলাকায় তাদের আটক করে সেনা সদস্যরা। সরকারি নির্দেশ অমান্য এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখার অপরাধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইফুল ইসলাম চালকসহ ১৫ আরোহীকে মোট ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। সেই সাথে দুটি মাইক্রোবাস আটক করা হয়।

জেলা প্রশাসক অজিয়র রহমান জানান, সেনাবাহিনী, র‌্যাব-পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত ভ্রাম্যমাণ আদালত সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে পাড়া-মহল্লা থেকে শুরু করে সর্বত্র চষে বেড়াচ্ছেন। করোনা মহামারি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত তাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে পর্যায়ক্রমে আদালত সংখ্যাগত দিক থেকে বৃদ্ধি করার কথাও ভাবছেন বলে জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here