ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলির হার্টের আর্টারিতে তিনটি ব্লকেজ ধরা পড়েছে। তার মধ্যে ডান দিকের ধমনীতে প্রায় ৯০ শতাংশ ‘ব্লক’ এবং বাকি দুটিতে প্রায় ৭০ শতাংশ ‘ব্লক’ রয়েছে। তবে সময়মতো হাসপাতালে আসায় তার অবস্থা এখন স্থিতিশীল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

শনিবার (২ জানুয়ারি) সকালে ট্রেডমিলে হাঁটার সময় আচমকাই বুকে-হাতে ব্যথা, সঙ্গে অস্বস্তি বোধ করায় আর সময় নষ্ট করেননি সৌরভ। দক্ষিণ কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে ও চিকিৎসকের সঙ্গে নিজেই যোগাযোগ করেন সৌরভ গাঙ্গুলি। এরপরেই সোজা চলে যান সেই হাসপাতালে।

সেই সময় তাঁর নাড়ির গতি ৭০ এবং রক্তচাপ ১৩০/৮০ ছিল। এর পরেই সৌরভের ইসিজি ও ইকোকার্ডিয়োগ্রাফি করেন চিকিৎসকেরা। তাতে দেখা যায়, তিনি মৃদু হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

চিকিৎসকের বরাত আনন্দবাজার জানিয়েছে, হাসপাতালে সৌরভের এনজিওগ্রাম ও এনজিওপ্লাস্টি করা হয়েছে। তাতে দেখা যায়, তাঁর হৃদপিণ্ডের তিনটি ধমনীতে ‘ব্লক’ রয়েছে। তার মধ্যে ডান দিকের ধমনীতে প্রায় ৯০ শতাংশ ‘ব্লক’ রয়েছে। বাকি দুটিতে প্রায় ৭০ শতাংশ ‘ব্লক’ রয়েছে। তখনই এনজিওপ্লাস্টি করে ডান দিকের ধমনীতে একটি স্টেন্ট বসানো হয়।

সৌরভের চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের সদস্য আফতাব খান বলেন, ‘লোকাল অ্যানেস্থেশিয়া দিয়ে স্টেন্ট বসানো হয়েছে। উনি সচেতন রয়েছেন। কথাবার্তাও বলছেন।’

বোর্ডের আরেক সদস্য হৃদরোগ চিকিৎসক সরোজ মণ্ডল বলেন, ‘অন্য যে দুটি ধমনীতে কম-বেশি সমস্যা রয়েছে, তা নিয়ে বোর্ড পরে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করবে। রাতে সৌরভকে হালকা খাবার দেওয়া হয়েছে।’

চিকিৎসকদের মতে, ধূমপান, অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ, হাই কোলেস্টেরল, অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ ডায়াবিটিস, স্থূলতা, অত্যধিক জাঙ্ক ফুড, ঘুম কম হওয়া, অত্যধিক স্ট্রেসের কারণে সাধারণত হৃদ‌্‌রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কিন্তু ধূমপান না করা, নিয়মিত শরীরচর্চা, নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন করার পরেও সৌরভ কেন হৃদ‌রোগে আক্রান্ত হলেন, তা ভাবার বিষয় বলেই মনে করছেন চিকিৎসকেরা।

জানা গিয়েছে, সৌরভের বাবা চণ্ডী গঙ্গোপাধ্যায়েরও হৃদযন্ত্রে বাইপাস সার্জারি করাতে হয়েছিল। ফলে এত শরীরচর্চা সত্ত্বেও জিনগত কারণে তিনিও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন।

এদিকে, সৌরভের করোনা রিপোর্টও নেগেটিভ এসেছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here